সোমবার, ২১শে মে, ২০১৮ ইং ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

২০১৫ সালে কলকাতার সেরা ১০ বাংলা সিনেমা

news-image


বিনোদন ডেস্ক : বছরের শুরুটা হয়েছিল শবর দাশগুপ্তর গোয়েন্দাগিরি দিয়ে৷ বছরের শেষ হচ্ছে শেকসপিয়রের রোমিও-জুলিয়েটের ছায়ায় ধর্মহীন প্রেমে৷ মাঝে অবশ্য চুটিয়ে ব্যাট করেছে ব্যোমকেশ বক্সি৷ টলিউডের সিনে হালচালে এবছরটায় গোয়েন্দা আর প্রেমেরই রমরমা৷ মাঝে অবশ্য পাঁচফোড়ন হয়ে স্বাদবদল ঘটিয়েছে কমেডি৷ সব মিলিয়ে ২০১৫-তে বাংলা সিনেমার ভাঁড়ার নানা বৈচিত্রে পূর্ণ৷ আসুন একবার ফিরে দেখা যাক এ বছরের সেরা সিনেমাগুলির দিকে৷

১. শুধু তোমারই জন্য

টলিউডের এবারের অন্যতম বাণিজ্যসফল ছবি৷ বীরসা দাশগুপ্তর এ ছবির ইউএসপি ছিলেন দেব৷ সুপারস্টারের কাঁধেই ছিল বাণিজ্য-তরণী পার করানোর ভার৷ তিনি তা করেছেন সফলভাবেই৷ ছবিতে দেব থাকলেও, আসলে এ ছবির কাস্টিং অনসম্বল৷ ছবিতে ছিলেন আরও এক নায়ক সোহম৷ ছিলেন দুই নায়িকা শ্রাবন্তী ও মিমি৷ পুজো রিলিজে বাংলা মেইনস্ট্রিম সিনেমার মরাস্রোতে জোয়ার ফিরিয়ে এনেছিল এ ছবি৷ নানাধরনের সিনেমা হলেও, বাংলা ইন্ডাস্ট্রিকে মাথা তুলে দাঁড়াতে হলে এ সিনেমার সাফল্য জরুরী ছিল৷ সন্দেহ নেই এবারও পরিত্রাতা হয়ে দাঁড়িয়েছেন দেব৷ প্রেমের গভীরতাকে সম্বল করেই এ ছবি বাজিমাত করেছিল৷

hqdefault

২. নির্বাসিত

অভিনেত্রী চূর্ণী গঙ্গোপাধ্যায়ের পরিচালক হিসেবে অভিষেক হল এ ছবিতে৷ তসলিমা নাসরিন আর তাঁর আদরের বিড়াল মিনুকে বাংলা ছবির অন্দরমহলে হাত ধরে নিয়ে এসে বাংলা ছবির জরির আঁচলে তিনি এঁকে দিলেন নিজের ঘরানার নকশা৷ প্রথম পরিচালিত ছবিতেই এসেছিল জাতীয় পুরস্কার৷ তবে এ ছবি কোনওভাবেই বায়োপিক নয়৷ নারী স্বাধীনতার পাশাপাশি, বাক স্বাধীনতার পক্ষেও জোরদার  সওয়াল ছিল এ ছবিতে৷ বাংলা সিনেমার ইতিহাসে নিঃসন্দেহে  এ ছবি এ বছরের সেরা সংযোজন৷

images

৩. ছোটদের ছবি

মায়ামাখা পরদায় যারা উচ্চতায় ছোট তাঁদের অস্বস্তি, তাঁদের প্রেম-দুঃখ না পাওয়ার যন্ত্রণা এঁকেছিলেন পরিচালক কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়৷ একইরকম বিষয় বাংলা সিনেমার দর্শক দেখেছিলেন বুদ্ধদেব দাশগুপ্তর ‘উত্তরা’ ছবিটিতেও৷ তবে কৌশিক স্বতন্ত্র তাঁর নিজস্ব সিনেমার ভাষায়, আঙ্গিকে৷ ছবিতে যাঁরা অভিনয় করেছিলেন- দুলাল সরকার ও দেবলীনা রায়-দুজনেই ব্যক্তিগত জীবনে পেয়েছেন এই অভিজ্ঞতা৷  আর এ ছবিতে তাই যেন জীবনের বাস্তবতা আর ছায়াছবির বাস্তবতা কোথাও মিলে গিয়েছিল এক বিন্দুতে৷ জাতীয় পুরস্কার তো বটেই৷  এ ছবিই দেশে প্রথম এনেছে ইউনেসকোর ফেলিনি পুরস্কার৷

2163566401

 

৪. ওপেন টি বায়োস্কোপ

 ফেলে আসা ছোটবেলা, নস্ট্যালজিয়া, পাড়ার পুরনো গন্ধ-পরদায় যেন মনকেমনের কবিতা লিখেছিলেন অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়৷ প্রথম ছবিতেই বাংলা সিনেমাকে তিনি দিয়েছেন এ অসাধারণ উপহার৷ এ ছবি যেমন বাঙালির মন ও মননের, তেমনই সফল বক্স অফিসেও৷ আর এ ছবিতেই বাংলা ছবি পেয়েছে একঝাঁক তরুণ প্রজন্মের অভিনেতাকে৷ ঋদ্ধি সেন, ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়রা যে আগামীদিনে বাংলা ছবিকে অভিনয়ে ভরিয়ে রাখবেন তার ইঙ্গিত দিয়ে গেল এ ছবিই৷

Open

৫. নাটকের মতো

নাট্যবক্তিত্ব কেয়া চক্রবর্তীর জীবনের ছায়ায় তৈরি এ ছবি৷ যদিও এ ছবি কোনও বায়োপিক নয়৷ ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রের নাম ছিল খেয়া৷ দেবেশ চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম ছবিতে উঠে এসেছিল বাংলা তিয়েটার দুনিয়ার এক বহু আলোচিত ইতিহাস৷ অভিনেত্রী পাওলি দামকে পাওয়া গিয়েছিল একেবারে অন্য রূপে৷ জীবন-কল্পনা-বাস্তবের মেলবন্ধনে সিনেমা ও নাটকের মতো দুটো ভিন্ন ফর্মকে অসামান্য দক্ষতায় মিলিয়ে দিয়েছিলেন পরিচালক৷ বাংলা সিনেমায় নিঃসন্দেহে এ ছবি এক ল্যান্ডমার্ক৷

safe_image

৬. বেলাশেষে

 শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায়ের এ ছবি এবছরের সেরা ছবি৷ মেইনস্ট্রিম ও আর্টহাউসের দ্বন্দ্ব বেশ কিছুদিন আগে থেকেই মুছে যাচ্ছিল সাম্প্রতিক বাংলা সিনেমার দুনিয়ায়৷ এ ছবি যেন  স্পষ্ট করে দেখিয়ে দিয়েছিল সে পথ৷ এ ছবিতেও ছিল অনসম্বল কাস্টিং৷ ‘ঘরে বাইরে’-র পর আবার একসঙ্গে পাওয়া গিয়েছিল সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্তকে৷ ছবিতে ছিলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, খরাজ মুখোপাধ্যায়, ইন্দ্রাণী দত্ত, মনামী ঘোষের মতো একঝাঁক তারকা৷ সবার উপরে ছিল সম্পর্কের এক গভীর কথা৷ দাম্পত্যের অভ্যাস আর প্রেমের দ্বন্দ্ব ও মীমাংসা সুচিত্রা ভট্টাচার্যের কাহিনির অক্ষর থেকে অসামান্য মুনশিয়ানায় পরদায় তুলে এনেছিলেন পরিচালক জুটি৷

bela-seshe3

৭. জামাই ৪২০

মজার ছবি৷ মেইনস্ট্রিম বাংলা ছবির আরও সাফল্যের কান্ডারি৷ তিন যুবকের প্রেম আর পরিবারের বড়দের ঠিক করে দেওয়া বিয়ের পাত্রী- এই সমীকরণেই নানা মজা জমেছিল পরদায়৷ রবি কিনাগীর পরিচালনায় এ ছবিতে ছিলেন সোহম, হিরণ, অঙ্কুষ, মিমি, নুসরত ও পায়েল৷ সপরিবারে দেখার মতো মজার উপাদান ছবিতে রেখেছিলেন পরিচালক, আর তাতেই বক্স অফিসে বাজিমাত হয়েছিল৷

jamai-420-2015-bengali-movi

৮. এবার শবর

অরিন্দম শীলের এ ছবিতেই এ বছরটা শুরু হয়েছিল৷ লালাবাজারের গোয়েন্দা শবর দাশগুপ্তকে শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের কাহিনি থেকে পরদায় তুলে এনেছিলেন পরিচালক৷ বাংলা ছবিতে পাওয়া গেল আরও এক গোয়েন্দাকে৷ শবর হয়ে দেখা দিয়েছিলেন শাস্বত চট্টোপাধ্যায়কে৷ নতুন গোয়েন্দার হাত ধরে বছরের শুরুতেই জোরদার সাফল্য এসেছিল বাংলা সিনেমার ইন্ডাস্ট্রিতে৷

tolly7

৯. ব্যোমকেশ বক্সি

গতবছরটা ছিল গোয়েন্দাদের দখলে৷ এবারও তাঁরা ছিলেন স্বমহিমায়৷ তবে এবার ফেলুদা নেই৷ পরিবর্তে পাওয়া গেল দুই ব্যোমকেশকে৷ অঞ্জন দত্তের ব্যেমকেশ হয়ে ছবিতে দেখা গিয়েছিল যীশু সেনগুপ্তকে৷ অজিত হিসেবে অপরিবর্তিত ছিলেন শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়৷ তাঁর অভিনয়ে ব্যেমকেশ নতুন মাত্রা পেল৷ তবে ছবির ভালোমন্দ নিয়ে নানারকম সমালোচনা ছিল৷

** অঞ্জনের ব্যোমকেশ বদলে গেলেও ব্যোমকেশ হিসেবে এবারও দেখা মিলল আবীর চট্টোপাধ্যায়ের৷ অরিন্দম শীলের ‘হর হর ব্যোমকেশ’ ছবিতে ফিরলেন তিনি৷ অজিত হয়ে দেখা গেল ঋত্বিক চক্রবর্তীকে৷ সত্যবতী হলেন সোহিনী সরকার৷ ছবির স্মার্ট মেকিংয়ের প্রশংসা জারি থাকলেও, ব্যোমকেশের চার্ম খুঁজে পাননি বহু দর্শকই৷

_cad8c9f8-7664-11e5-bc61-5d96ac0074a6

 

১০. রাজকাহিনী

এ বছরের সর্বাধিক আলোচিত ছবি৷ পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়৷ দেশভাগের প্রেক্ষিতে পতিতা রমণীদের যন্ত্রণার বয়ানে প্রান্তিক মানুষের লড়াইয়ের কাহিনি তুলে এনেছিলেন পরিচালক৷ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত৷ তাঁর অভিনীত বেগম জান বাংলা সিনেমার ভাঁড়ারে সেরা প্রাপ্তি সন্দেহ নেই৷ তবে পরিচালনার বেশ কিছু ত্রুটি ক্ষুব্ধ করেছিল সমালোচকদের৷

maxresdefault

 
Print Friendly, PDF & Email