রবিবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং ১০ই বৈশাখ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মানুষকে আলোকিত করতে পবিত্র কোরআন

AmaderBrahmanbaria.COM
ডিসেম্বর ৯, ২০১৫
news-image

রাব্বি জিদনি ইলমা। হে আমাদের মহান রব, আমাদের জ্ঞান প্রজ্ঞা বাড়িয়ে দিন। যে জ্ঞান গ্রন্থ আপনি গ্রহবাসীর জন্য দান করেছেন। সে গ্রন্থ যেন আমরা নিজেরা পাঠ করে এর পাঠ উপযোগিতা সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে পারি। হে আমাদের রব, আমরা যদি এ দায়িত্ব সম্পন্ন না করতে পারি তাহলে আপনার নামের প্রশংসা এ দুনিয়ায় কে ছড়াবে? আমাদের আপনার জ্ঞান গ্রন্থের আলোয় আলোকিত বান্দা বানিয়ে দিন। আল্লাহতায়ালা মানুষের জীবন পরিচালনার জন্য কোরআনুল করিম নামক একটি পথ-প্রদর্শক গ্রন্থ দান করেছেন। উদ্দেশ্য হলো— মানুষ যেন এ গ্রন্থের আলোকে তার ব্যক্তি জীবন, পারিবারিক জীবন, সামাজিক জীবন, রাজনৈতিক এবং আন্তর্জাতিক জীবন পরিচালনা করতে পারে। কিন্তু কালের বিবর্তনে অন্যান্য ঐশী গ্রন্থের মতো মানুষ এ মহান গ্রন্থকেও বিভিন্নভাবে পরিত্যাগ করেছে, এর শিক্ষা ভুলে গেছে। পবিত্র কোরআনের ওপর বিশ্বাসী দাবি করার পরও যারা কোরআন তেলাওয়াত করে না, কোরআন বোঝার চেষ্টা করে না, কোরআনের সমাজ কায়েমের আন্দোলনে জীবন বাজি রেখে লড়াই করে না, তাদের বিরুদ্ধে রসুল (সা.) কেয়ামতের দিন মহান আল্লাহর আদালতে এক কঠিন মামলা দায়ের করবেন। সূরা ফোরকানে আল্লাহতায়ালা রসুল (সা.)-এর মামলাটি এভাবে উল্লেখ করেছেন, ‘আর রসুল বলবে, হে আমার প্রতিপালক! আমার জাতি এ কোরআনকে পরিত্যক্ত করে রেখেছিল।’ (সূরা ফোরকান, ২৫:৩০।) আলোচ্য আয়াতের আলোকে সব মুফাসসির একমত, কোরআনকে পরিত্যাগ-পরিত্যক্ত করা মহাপাপ। কোরআনকে পরিত্যাগ করা কয়েকভাবে হতে পারে। কোরআন অস্বীকার করা, কোরআন অবিশ্বাস করা, কোরআন সম্পর্কে সন্দেহ করা, কোরআন না পড়া, কোরআন শিখে ভুলে যাওয়া, কোরআনের অর্থ না বোঝা, কোরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনা না করা, কোরআন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে বাধা প্রদান করা— এ সবই কোরআন পরিত্যাগের অন্তর্ভুক্ত। রসুল (সা.)-এর একান্ত সেবক হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেছেন, ‘কোরআন শেখার পর যে ব্যক্তি কোরআন তেলাওয়াত করল না, কোরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করল না বরং কোরআনকে ঘরের এক কোণে ঝুলিয়ে রাখল, কেয়ামতের দিন সে আল্লাহর সামনে গলায় ঝুলন্ত কোরআন নিয়ে উপস্থিত হবে। কোরআন বলবে, হে আল্লাহ! আপনার এ বান্দা আমাকে পরিত্যাগ করেছে/পরিত্যক্ত করে রেখেছে। আপনি তার এবং আমার মাঝে ফায়সালা করে দিন। (কুরতুবি।) প্রখ্যাত মুফাসসির হাফেজে হাদিস আল্লামা ইমাদুদ্দিন ইবনে কাসির (র.) কোরআন পরিত্যাগের ব্যাখ্যায় লেখেন, ‘কাফেরদের সামনে কোরআন তেলাওয়াত করা হলে তারা কোরআন শুনত না এবং অন্যকে শুনতেও দিত না। কোরআনের ভাষায়, ‘কাফেররা বলে, তোমরা এ কোরআন শোনবে না এবং এটা আবৃত্তি করার সময় হট্টগোল/শোরগোল সৃষ্টি করবে। তাহলে তোমরা বিজয়ী হবে। (সূরা হামিম সাজদাহ, ৪১:২৬।) এটা ছিল কাফেরদের কোরআন পরিত্যাগ করা এবং কোরআনের ওপর ইমান না আনা। কোরআনের সত্যতা স্বীকার না করা, কোরআন সম্পর্কে চিন্তা গবেষণা না করাও কোরআন পরিত্যাগের অন্তর্ভুক্ত। (ইবনে কাসির) প্রত্যেক মুসলমানই দাবি করে তারা কোরআন বিশ্বাস করে এবং ভালোবাসে। কিন্তু কোরআনের সঙ্গে তাদের আচরণ দেখলে যে কেউ বলতে বাধ্য হবে, নিশ্চয়ই এরা কোরআনকে পরিত্যাগ করেছে। কোরআন এসেছে মানুষের জীবনকে বদলানোর জন্য। ‘বদলে যাও বদলে দাও’— এটি কোরআনের স্লোগান। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আল্লাহ কোনো জাতির ভাগ্য পরিবর্তন করেন না, যতক্ষণ না তারা নিজেরা নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করে। (সূরা রা’দ, ১৩:১১) পবিত্র কোরআন আমাদের চোখের সামনে বর্তমান থাকা সত্ত্বেও পৃথিবীর বুকে আমরাই সবচেয়ে হতভাগা ও দুর্বল জাতি হয়ে আছি। বিশ্বের আনাচে-কানাচে মুসলমানরা অপমান এবং লাঞ্ছনার বোঝা নিয়ে নির্বাক জীবনযাপন করছে। মুসলমান নিজেরাই নিজেদের দুর্গে আঘাত হানছে। বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের বিচরণক্ষেত্র সীমাবদ্ধ হয়ে আসছে। অথচ আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘ত্বা-হা। আমি এ কোরআন তোমার প্রতি এ জন্য নাজিল করিনি যে, তুমি বিপদে পড়বে। (সূরা ত্বা-হা, ২০:১-২)। অর্থাত্ তোমার মাঝে কোরআন থাকা সত্ত্বেও তুমি হতভাগা হয়ে থাকবে, লাঞ্ছনা-অপমানের বোঝা বয়ে বেড়াবে, নিজেরাই নিজেদের শত্রু হয়ে যাবে, বিশাল পৃথিবী তোমার জন্য ছোট হয়ে যাবে এ জন্য আমি কোরআন নাজিল করিনি। আমি কোরআন নাজিল করেছি কোরআন তোমাদের বিশ্বের নেতৃত্বের আসনে অধিষ্ঠিত করবে, মানবতার কল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ হিসেবে তৈরি করবে, জ্ঞান-বিজ্ঞানের সব শাখায় অবাধ বিচরণের সুযোগ সৃষ্টি করবে, পৃথিবীর সব জাতি তোমাদের নির্দেশ মেনে চলবে। জীবনে অসংখ্যবার কোরআন খতম করেছে কিন্তু অর্থসহ বুঝে একটি আয়াত কিংবা সূরা পড়া হয়নি— আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলায় এমন মানুষের সংখ্যাই বেশি। কে যেন রটিয়ে দিল অর্থ জানা ছাড়া কোরআন পড়লেও সাওয়াব পাওয়া যায়। সে থেকেই মানুষ সওয়াবের পেছনে ছুটছে নিরন্তর। তাদের জানানো হয়নি কোরআন এসেছে বোঝার জন্য, চিন্তা গবেষণার জন্য। কোরআন সম্পর্কে চিন্তা গবেষণা না করলে কেয়ামতের দিন প্রিয় নবীর মামলায় আসামি হয়ে মহাপ্রতাপশালী অসীম ক্ষমতাধর পর্যন্ত আল্লাহর আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। কোরআন পরিত্যাগের অপরাধে অপরাধী হয়ে কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হবে। হে আমার মুমিন ভাই! আদরের বোন! আসুন আমরা কোরআন দিয়ে নিজের ভাগ্য বদলাই। কোরআন শিখি, কোরআন বুঝি, কোরআন অনুযায়ী জীবন গড়ি। হে দয়াময়! কোরআনকে আমাদের জীবন পথের পাথেয় করে দিন।  আমিন।