g শিশু তপনের সাহসীকতা! | AmaderBrahmanbaria.Com – আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া

রবিবার, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং ২রা আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

শিশু তপনের সাহসীকতা!

AmaderBrahmanbaria.COM
আগস্ট ৯, ২০১৫
news-image

---

স্টাফ রিপোর্টার সরাইল :  শিশু তপন মিয়া। পিতা শাহজাহান মিয়া। বয়স মাত্র ৮ বছর। বাড়ি ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে সরাইলের কুট্রাপাড়ায়। কোন অস্ত্র সস্ত্র ছাড়াই একা ৭ ফুট লম্বা একটি বিষধর গোখরো সাপ মেরে তাক লাগিয়ে দিয়েছে মানুষকে। তার এ অসম সাহসীতায় আশ্চর্য ও মুগ্ধ হয়েছেন পথচারিরা। হাজারো বাহবা পেয়েছে তপন। শিশু তপন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার সকাল ১১টা। প্রচন্ড গরম। বাড়ি থেকে বের হয়ে মহাসড়কে আসে তপন। কিছুক্ষণ হাঁটা হাটির পর পাশের খালি মাঠে নেমে পড়ে। মাঠে ঘুরতে থাকে। হালকা বাতাস অনেকটা স্বস্থ্যি বোধ করে সে। এক জমির পর আরেক জমির আইল দিয়ে হাঁটছে। হঠাৎ একটি বড় সাপ দেখে থমকে দাঁড়ায় শিশুটি। পানির পাশের শুকনো জায়গায় বসে আছে সাপটি। এটি বিষধর গোখরো। আঞ্চলিক ভাষায় বলে ফানক সাপ। অত্যন্ত রাগী। এ সাপ ছোবল দিলে মানুষ বাঁচে না। শিশু তপনের কাছে বিষয় গুলো ছিল অজানা। তপন সাহসের সাথে সাপটির দিকে এগিয়ে যায়। কাছে যাওয়ার পর সাপটি নড়েচড়ে তপনের দিকে তাকায়। পিছু হাটেনি তপন। খালি হাত। কি করবে ভাবছে। হাতের কাছে ছিল ঢেড়স গাছের ছোট চিকন একটি ডাল। সেটিই হাতে তুলে নিল তপন। সাপটি তখন আস্তে করে পানিতে গিয়ে মাথা উচিয়ে ফনা ধরে। তপন ও কম যায়নি। দ্রুত সাপটির কাছে গিয়ে তপন ওই লাঠিটি দিয়ে প্রথমে সাপের মাথায় কয়েকটি আঘাত করে। সাপটি ফনা তুলে তপনের দিকে আসার চেষ্টা করে। তপন ফের সাপটিকে আঘাত করলে দূর্বল হয়ে যায়। পরে সাপটির শরীরে এলো পাতাড়ি আঘাত করে মৃর্ত্যু নিশ্চিত করে। মৃত সাপটি নিয়ে বীরদর্পে কুট্রামোড়ে আসে তপন। একা শিশু তপন বিষধর গোখরো সাপটিকে মেরে ফেলেছে। এটা কেউই বিশ্বাস করতে পারছিল না। মূহুর্তের মধ্যে সাহসী শিশু তপনকে ও ৭ ফুট লম্বা সাপটিকে এক নজর দেখার জন্য উৎসুক লোকজন ভীড় জমায়। 

 

এ জাতীয় আরও খবর