বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০১৯ ইং ৫ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্বপ্নদোষ কি অসুখ?

 

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বয়ঃসন্ধি কেটে যাওয়ার পরেও কারও কারও স্বপ্নদোষ হতে পারে। তার সঙ্গে যৌন উত্তেজক স্বপ্নের সম্পর্ক থাকতে পারে, আবার না-ও পারে। এমনকী অনেক সময় পুরুষাঙ্গের উত্থান ছাড়াই স্বপ্নদোষ ঘটতে পারে।

এ মা! এটা কী হল! সবার কাছে মুখ দেখাব কী করে! না, এমন ভাবার কারণ নেই। শুধু আপনার নয় সবারই হয়। সব পুরুষেরই ঘুমের মধ্যে বীর্যপাতের অভিজ্ঞতা হয়।
এটাকেই বলে স্বপ্নদোষ। না, নামে দোষ থাকলেও, এতে দোষের কিছু নেই। সাধারণত ১৩ থেকে ১৯ বছর বয়সী ছেলেদেরই এমনটা বেশি হয়। একজন পুরুষ প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার প্রাথমিক বছরগুলোতে এমন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হওয়া খুবই সাধারণ ব্যাপার।
তবে বয়ঃসন্ধি কেটে যাওয়ার পরেও কারও কারও স্বপ্নদোষ হতে পারে। তার সঙ্গে যৌন উত্তেজক স্বপ্নের সম্পর্ক থাকতে পারে, আবার না-ও পারে। এমনকী অনেক সময় পুরুষাঙ্গের উত্থান ছাড়াই স্বপ্নদোষ ঘটতে পারে।

 

 

শুধু ছেলেরাই নয়। মেয়েদেরও অনেক সময়ে ঘুম থেকে জাগার সময় কিংবা ঘুমের মধ্যে ‘সেক্স ড্রিম’ আসতে পারে। ঘুমের মধ্যে চরম পুলক লাভের অভিজ্ঞতা।
চিকিৎসকরা বলেন, স্বপ্নদোষের পরিমাণ ভিন্ন ভিন্ন হয়। কারও বেশি আবার অনেক পুরুষের একবারও হয় না। কিছু পুরুষ শুধুমাত্র একটা নির্দিষ্ট বয়সে এই ধরনের স্বপ্ন দেখেন, আবার অনেকে বয়ঃসন্ধি পার করার পরেও সারাজীবন এ ধরনের স্বপ্ন দেখে যেতে থাকেন।

 

 
একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, একজন পুরুষের স্বপ্নদোষের মাত্রা বেড়ে যায় টেস্টোস্টেরন-সমৃদ্ধ ওষুধ খেলে। তবে ঘন ঘন স্বপ্নদোষের সঙ্গে ঘনঘন হস্তমৈথুন করার তেমন কোনও সম্পর্ক নেই। যদিও কোনও কোনও চিকিৎসক মনে করেন, সাধারণভাবে যে সব পুরুষের ঘনঘন স্বপ্নদোষ হয়, তারা কম হস্তমৈথুন করেন।

 

Gum-2

স্বপ্নদোষের পরে অনেকেই অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন। মনে রাখা দরকার স্বপ্নদোষ যেহেতু কোনও অসুখ নয় তাই এর কোনও চিকিৎসাও নেই। নানা ঘরোয়া প্রতিষেধক চালু থাকলেও তার কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। স্বপ্নদোষ কোনও রকম শারীরিক ক্ষতিও করে না।
অনেকের মধ্যেই ধারণা আছে, বেশি স্বপ্নদোষ মানে বিবাহিত জীবনে সমস্যা হবে। এই ভাবনারও কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। বিশেষজ্ঞরা বলেন, এ নিয়ে আতঙ্কে না থেকে বরং প্রকৃতির নিয়মকে মেনে সুখে থাকাই উচিত। অভিভাবকদেরও বিষয়টা সম্পর্কে সচেতন থাকা উচিত।